মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

পূর্ববতী মামলার রায়

 

রামচন্দ্রপুরহাট, চাঁপাইনবাবগঞ্জ

ইউনিয়ন পরিষদ/ গ্রামাদালতের মামলা/অভিযোগ নিষ্পত্তি কার্যক্রমের চুড়ামত্ম প্রতিবেদনঃ

মামলা/ অভিযোগ নং-১১/১২

১। বাদী/ অভিযোগকারী ঃ ১।মোঃ ফজলুর রহমান,২। মোহাঃ টুনু মন্ডল, উভয়ের পিতাঃ মৃত, ইদ্রিশ মন্ডল সর্ব ঠিকানাঃ সাং- ঘোড়াপাখিয়া, ডাকঘর- রামচন্দ্রপুরহাট, ইউনিয়ন - রাণীহাটী, উপজেলা - চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর জেলাঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জ।

২। বিবাদী/ অভিযুক্তঃ ১। মোহাঃ দবির উদ্দীন, ২। মোহাঃ রোবু মন্ডল, উভয়ের পিতাঃ মৃত, সলেমান মন্ডল সর্ব ঠিকানাঃ সাং- ঘোড়াপাখিয়া, ডাকঘর- রামচন্দ্রপুরহাট, উপজেলা -চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর জেলাঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জ।

ইউনিয়ন - রাণীহাটী, উপজেলা - চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর জেলাঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জ।

 

৩। অভিযোগ  প্রাপ্তির তারিখঃ ১০/০৩/২০১২খ্রিঃ ।

 

৪। অভিযোগের মুখ্য বিষয়/ দাবী ঃবিবাদীগন কর্তৃক অভিযোগকারীর জমি জবর- দখল ও  অশামিত্ম সৃষ্টি ।

 

৫। অভিযোগের বিসত্মারিত বিবরণঃ  বিবাদীগন অত্যমত্ম ধুরন্ধর প্রকৃতির, সম্পর্কে অভিযোগকারীগনের চাচাত ভাই  হচ্ছে। অভিযোগকারীগন ও বিবাদীগনের জমি একই দাগে যার দাগ নং আর,এস ১০৩৯ ও ১০৪০।  উক্ত দাগের জমি বিবাদীগন অবৈধভাবে ভোগদখল করিতেছে মর্মে অভিযোগকারীগন পরিষদের আমিন দ্বারা মাপ করে সীমানা নির্ধারনের জন্য এবং অভিযোগকারীগনের অংশের জমি জোড় পূর্বক জবর দখল করে চাষাবাদ ও ভোগ- দখলে অভিযোগকারীকে বাধা দান এবং অশামিত্ম সৃষ্টিতে নানাবিধ দুরভিসান্ধি মুলক পদক্ষেপ গ্রহনের ফলে ন্যায় সংগত অধিকার হতে অভিযোগকারী বঞ্চিত হলে অধিকার রক্ষা ও শাসিত্মপূর্ণ সমাধানের প্রত্যাশায় নিম্ন স্বাক্ষরকারী বরাবরে লিখিত অভিযোগপত্র দাখিল করেন । 

 

৬। গৃহীত কার্যক্রমঃ বিষয়টি গ্রাম আদালতের মাধ্যমে বিচার-নিষ্পত্তি যোগ্য না হওযায় বিরোধ নিষ্পত্তি ও শামিত্ম স্থাপনের অগ্রাধিকার মূলক দ্বায়িত্ব স্বরূপ নিম্ন স্বাক্ষরকারী তাঁর বিবিধ কার্যক্রমের আওতায় অভিযোগ নিষ্পত্তির  পদক্ষেপ গ্রহণ করেন । লিখিত অভিযোগ পত্র প্রাপ্তির পর তা নথীভুক্ত করা হয়। সার্বিক সনাক্ত করণ ও অভিযোগ নিষ্পত্তির জন্য যথাক্রমে হাজিরা তাং ধার্য পূর্বক ২৪/০৩/২০১২খ্রিঃ, ১১/০৪/২০১২খ্রিঃ এবং ৩০/০৬/২০১২খ্রিঃ এবং ০৮/০৯/২০১২খ্রিঃ তারিখ বিবাদীগনকে সমন প্রেরণ করা হয়। বিবাদীগন  সমন গ্রহণ করা সত্ত্বেও  আদালতে হাজির হন নাই এবং কোন প্রকার কারণ ও যোগাযোগ ব্যতিরেকে অত্র আদালতে অনুপস্থিত থাকেন প্রেক্ষিতে একতরফা মূল্যায়নের ক্ষেত্র প্রস্ত্তত হয় ।

 

৭। মূল্যায়ন /পর্যবেক্ষণঃ বিবাদীগন জ্ঞাতসারে স্থানীয় নিষ্পত্তির উদ্যোগ অবজ্ঞা করেছেন । আত্ম পক্ষ সমর্থনে বিবাদীর  নৈতীক অক্ষমতা দৃশ্যমান । বাদী সর্বত্রই আইনানুগ আশ্রয় ও সুবিচার প্রাপ্তির হকদার ।

 

৮। সার্বিক মমত্মব্য /পরামর্শঃনিম্ন স্বাক্ষরকারী/ গ্রামাদালতে মামলা / অভিযোগ নিষ্পত্তি সম্ভব না হওয়ায় এবং যথাযথ আদালতের মাধ্যমে বিচার ও অভিযোগ নিষ্পত্তির প্রয়োজন অনুভুত হওয়ায় মামলার নথী কার্যক্রম বন্ধ পূর্বক বাদীকে যথাযথ আদালতের শ্মরনাপন্ন হওয়ার পরামর্শ প্রদান করা হয়।

 

তাং - ০৮/০৯/২০১২খ্রিঃ                                                                       

                                                                                                       (মোঃ দুরুল হোদা)

   চেয়ারম্যান

  ৬নং রাণীহাটী ইউনিয়ন পরিষদ

  রামচন্দ্রপুরহাট, চাঁপাইনবাবগঞ্জ

৬নং রাণীহাটী ইউনিয়ন পরিষদ

রামচন্দ্রপুরহাট, চাঁপাইনবাবগঞ্জ

ইউনিয়ন পরিষদ/ গ্রামাদালতের মামলা/অভিযোগ নিষ্পত্তি কার্যক্রমের চুড়ামত্ম প্রতিবেদনঃ

মামলা/ অভিযোগ নং-১১৩/১২

১। বাদী/ অভিযোগকারীঃ মোঃ তোজাম্মেল হক পিতাঃ মৃত, সাইফুদ্দিন সর্ব ঠিকানাঃ সাং- বহরম, ডাকঘর- রামচন্দ্রপুরহাট, ইউনিয়ন - রাণীহাটী, উপজেলা - চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর জেলাঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জ।

২। বিবাদী/ অভিযুক্তঃ১। মোঃ মফাজুল হক পিতাঃ মৃত, সলেমান মন্ডল ২। মোঃ কালু বিশ্বাস পিতাঃ মৃত,কলিমুদ্দিন সর্ব ঠিকানাঃ সাং-হাটরামচন্দ্রপুর ডাইল পাড়া, ডাকঘর- রামচন্দ্রপুরহাট, উপজেলা -চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর জেলাঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জ। ইউনিয়ন - রাণীহাটী, উপজেলা - চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর জেলাঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জ।

৩। অভিযোগ  প্রাপ্তির তারিখঃ ১৪/০১/২০১২খ্রিঃ ।

৪। অভিযোগের মুখ্য বিষয়/ দাবীবিবাদীগন কর্তৃক অভিযোগকারীর মাটি অবৈধ দখল এবং হোটেলের চুলাতে ঘরের ক্ষতি ও  অশামিত্ম সৃষ্টি ।

৫। অভিযোগের বিসত্মারিত বিবরণঃ  অভিযোগকারী ১নং বিবাদীর বিল্ডিং এর ওয়াল সংলগ্ন হোটেল আছে। উক্ত হোটেলের ধোয়ায় এবং চুলার আগুনে অভিযোগকারীর ব্যাপক ক্ষতি সাধন হচ্ছে। তাছাড়া অভিযোগকারীর উক্ত চুলার স্থানে তিন ফুট মাটি রয়েছে এর প্রেক্ষিতে বিবাদীগনের দুরভিসান্ধি মুলক পদক্ষেপ গ্রহনের ফলে ন্যায় সংগত অধিকার হতে অভিযোগকারী বঞ্চিত হলে অধিকার রক্ষা ও শাসিত্মপূর্ণ সমাধানের প্রত্যাশায় নিম্ন স্বাক্ষরকারী বরাবরে লিখিত অভিযোগপত্র দাখিল করেন । 

৬। গৃহীত কার্যক্রমঃবিষয়টি গ্রাম আদালতের মাধ্যমে বিচার-নিষ্পত্তি যোগ্য না হওযায় বিরোধ নিষ্পত্তি ও শামিত্ম স্থাপনের অগ্রাধিকার মূলক দ্বায়িত্ব স্বরূপ নিম্ন স্বাক্ষরকারী তাঁর বিবিধ কার্যক্রমের আওতায় অভিযোগ নিষ্পত্তির  পদক্ষেপ গ্রহণ করেন । লিখিত অভিযোগ পত্র প্রাপ্তির পর তা নথীভুক্ত করা হয়। সার্বিক সনাক্ত করণ ও অভিযোগ নিষ্পত্তির জন্য যথাক্রমে হাজিরা তাং ধার্য পূর্বক ২১/০১/২০১২খ্রিঃ, তারিখ বিবাদীগনকে সমন প্রেরণ করা হয়। বিবাদীগন  সমন গ্রহণ করে অত্র  আদালতে হাজির হন এবং গ্রাম আদালত গঠন পূর্বক উভয়ের শুনানী গ্রহণ পূর্বক সার্ভেয়ার মোঃ মজিবুর রহমান সাং  মহারাজপুর এর মাধ্যমে জমি সার্ভেকরতঃ (জমি বন্টনের হাত নক্সা সংযুক্ত)  সর্ব সম্মতিক্রমে গ্রাম আদালত কমিটি নিম্ন লিখিত রায় ঘোষণা করেন।

1)      তোজাম্মেলের বিল্ডিং এর এক তলার উপরে যে সমস্থ ঘর আছে বা হবে তাতে উত্তরে কোন প্রকার জানালা রাখতে পারবে না।

2)      দাগের দক্ষিণ পার্শ্ব দিয়ে রাসত্মা হওয়ার কারনে আফজালের অংশ হতে০০.৩০ শতক এবং তোজাম্মেল দিং এর অংশ হতে ০০.৩০ শতক জমি রাসত্মায় পড়েছে সেহেতু নক্সায় অংকিত তোজাম্মেল দিং এর বিল্ডিং এর পশ্চিমে( উত্তরে ৮ ইঞ্চি এবং দক্ষিন কোনে ১ ফুট ৯ ইঞ্চি) কালি সারা ০০.০৭ শতক জমি আফজালের অনুকহলে ছেড়ে দেয়া হল।

3)      তোজাম্মেল বিল্ডিং এর পশ্চিম পার্শ্ব ওয়াল প্লাসটার করে নিবে, কিন্তু সেখানে কিছু করতে পারবে না কারণ সেখানে সে সত্তহীন তা মফাজুল হকের অনুকহলে থাকবে।

4)      মফাজুল হক চুলার ধুয়া গ্যাস পাইপের সাহায্যে উপরে উঠিয়ে নিবে যাতে উক্ত ধুয়ায় তোজাম্মেলের বিল্ডিং এর কোন ক্ষয়ক্ষতি না হয়।

 

        (মোঃ দুরুল হোদা)

   চেয়ারম্যান

  ৬নং রাণীহাটী ইউনিয়ন পরিষদ

  রামচন্দ্রপুরহাট, চাঁপাইনবাবগঞ্জ

 

 

গ্রাম আদালত কমিটির সদস্যগনের নাম ও স্বাক্ষরঃ

1)     মোঃ মহসিন আলী সাবেক চেয়ারম্যানঃ

2)     মোঃ আবুল কালাম আজাদ সাং রামচন্দ্রপুরহাটঃ

3)     মোঃ এত্তাজুল হক সাং রামচন্দ্রপুরঃ

4)      মোঃ রহমত আলী ইউপি সদস্যঃ

 

তাং - ১৪/০৯/২০১২খ্রিঃ                                                                        

                                                                                                     

 

 

 

 

 

৭। মূল্যায়ন /পর্যবেক্ষণঃ বিবাদীগন জ্ঞাতসারে স্থানীয় নিষ্পত্তির উদ্যোগ অবজ্ঞা করেছেন । আত্ম পক্ষ সমর্থনে বিবাদীর  নৈতীক অক্ষমতা দৃশ্যমান । বাদী সর্বত্রই আইনানুগ আশ্রয় ও সুবিচার প্রাপ্তির হকদার । হেতু গ্রাম আদালত গঠন পূর্বক তাদের নিযুক্ত সার্ভেয়ার মোঃ মজিবুর রহমান সাং মহারাজপুর দ্বারা ০৫/০২/২০১২খ্রিঃ তারিখ সার্ভে করতঃ জমির সীমানা নির্ধারন (কপি সংযুক্ত) পূর্বক নিম্ন মতে সিদ্ধামত্ম গৃহিত হয়।

সিদ্ধামত্ম সমূহঃ

১।

 

 

 

 

 

৬নং রাণীহাটী ইউনিয়ন পরিষদ

রামচন্দ্রপুরহাট, চাঁপাইনবাবগঞ্জ

ইউনিয়ন পরিষদ/ গ্রামাদালতের মামলা/অভিযোগ নিষ্পত্তি কার্যক্রমের চুড়ান্ত প্রতিবেদনঃ

মামলা/ অভিযোগ নং-১২৯/১২

১। বাদী/ অভিযোগকারী ঃমোঃ এরশাদ আলী পিতাঃ  মৃত, হেফাজ উদ্দীন, ঠিকানাঃ সাং- হাটরামচন্দ্রপুর, ডাকঘর- রামচন্দ্রপুরহাট, উপজেলা - চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর জেলাঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জ।

 

২। বিবাদী/ অভিযুক্তঃমোঃ আব্দুল আজিজ  পিতাঃ মৃত, হেফাজ উদ্দীন, ঠিকানাঃ সাং- হাটরামচন্দ্রপুর, ডাকঘর- রামচন্দ্রপুরহাট, উপজেলা - চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর জেলাঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জ।

ইউনিয়ন - রাণীহাটী, উপজেলা - চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর জেলাঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জ।

৩। অভিযোগ  প্রাপ্তির তারিখঃ ২৯/১২/২০১২খ্রিঃ ।

 

৪। অভিযোগের মুখ্য বিষয়/ দাবীঃ বিবাদীগন কর্তৃক অভিযোগকারীর  সরলতার সুযোগ নিয়ে  অন্যায় অত্যাচার,ষড়যন্ত্র, হয়রানীমূলক কার্যক্রম ও অশান্তি সৃষ্টির চেষ্টা । ুু

 

৫। অভিযোগের বিস্তারিত বিবরণঃউল্লিখিত বিবাদী অত্যন্ত ধুরন্ধর ও মামলাবাজ প্রকৃতির, সম্পর্কে অভিযোগকারীর বড় ভাই   হচ্ছে। অভিযোগকারী  বিগত ১৯৯৩ সাল হতে ২০০৪ সাল পর্যন্ত কুয়েতে অবস্থান কালীন সময়ে যাবতীয় রোজগারের টাকা বিবাদীর নামে প্রেরণ করে। অভিযোগকারী কুয়েত থেকে এসে ২০০৪ সাল হতে ২০০৬ সাল পর্যন্ত  বাড়িতে অবস্থান করে জানতে পারে যে, তাঁর রোজগারের টাকার হিসাবে গরমিল হচ্ছে। প্রেক্ষিতে অভিযোগকারী ২০০৬ সাল হতে ২০০৮ সাল পর্যমত্ম আবার কুয়েত গমন করে তাঁর রোজগারের টাকা তাঁর স্ত্রীর নামে পাঠাতে থাকলে বিবাদী অভিযোগকারী ও তাঁর পরিবারের সহিত শত্রুতা ও অন্যায় অত্যাচার শুরু করে এবং চাঁপাইনবাবগঞ্জ কোটে জমি সংক্রান্ত ব্যাপারে অভিযোগকারীর বিরুদ্ধে মামলা করে। যার নং ২৩৭/২০০৮। কিন্তু মামলাটি ভুয়া হওয়ায় ০৩/০৩/২০০৯খ্রিঃ তারিখ বিজ্ঞ আদালত খারিজ করে দেয়। উল্লিখিত বিবাদী চাঁপাইনবাবগঞ্জ কোটে অভিযোগকারীর বিরুদ্ধে আরেকটি ৫ লক্ষ টাকার চিটিং মামলা করে যার নং সি,আর-৫০৯/২০০৮(নবাব)। কিন্তু উক্ত মামলা আবার ও ভুয়া প্রমাণিত হবে মর্মে প্রত্যাহার করে নেয় এবং মামলা উত্তোলনের নাম করে অভিযোগকারীর সরলতার সুযোগে ফাঁকা ষ্ট্যাম্পে স্বাক্ষর করে নেয়। উক্ত ষ্ট্যাম্প ব্যবহার করে বিবাদী পুনরায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ কোটে অভিযোগকারীর বিরুদ্ধে ৩ লক্ষ ৫০ হাজার টাকার মামলা করে যার নং সি,আর ১১৭/২০১১। উক্ত মামলার প্রেক্ষিতে বিগত ২৪ অক্টোবর/২০১২ অভিযোগকারী কুয়েত থেকে বাড়িতে আসলে বিবাদী অভিযোগকারীকে পুলিশ দ্বারা ধরিয়ে দেয়। অভিযোগকারী ২৫ অক্টোবর জামিন পায়। এভাবে বিবাদী পক্ষ অভিযোগকারীর সরলতার সুযোগ গ্রহন করে  দেশে ও বিদেশে থাকা কালীন পরিবারের উপর বিভিন্ন মানসিক নির্যাতন অন্যয় অত্যাচার এবং বিভিন্ন হয়রানীমূলক আচরন,মামলা ও ষড়যন্ত্র  এবং অশান্তি সৃষ্টিতে নানাবিধ দুরভিসান্ধি মুলক পদক্ষেপ গ্রহনের ফলে ন্যায় সংগত অধিকার হতে অভিযোগকারী বঞ্চিত হলে অধিকার রক্ষা ও শান্তিপূর্ণ সমাধানের প্রত্যাশায় নিম্ন স্বাক্ষরকারী বরাবরে লিখিত অভিযোগপত্র দাখিল করেন । 

৬। গৃহীত কার্যক্রমঃবিষয়টি গ্রাম আদালতের মাধ্যমে বিচার-নিষ্পত্তি যোগ্য না হওয়ায় বিরোধ নিষ্পত্তি ও শান্তি স্থাপনের অগ্রাধিকার মূলক দ্বায়িত্ব স্বরূপ নিম্ন স্বাক্ষরকারী তাঁর বিবিধ কার্যক্রমের আওতায় অভিযোগ নিষ্পত্তির  পদক্ষেপ গ্রহণ করেন । লিখিত অভিযোগ পত্র প্রাপ্তির পর তা নথীভুক্ত করা হয়। সার্বিক সনাক্ত করণ ও অভিযোগ নিষ্পত্তির জন্য যথাক্রমে হাজিরা তাং ধার্য পূর্বক ০৫/০১/২০১৩খ্রিঃ, ১২/০১/২০১৩খ্রিঃ এবং ১৯/০১/২০১৩খ্রিঃ বিবাদীকে সমন প্রেরণ করা হয়। কিন্তু বিবাদী বাড়িতে থাকা সত্ত্বেও ১ম, ২য় ও ৩য় সমন গ্রহণ করে নাই। (যাহা গ্রাম আদালত অবমাননার শামীল।) ফলে গ্রাম পুলিশ টাঙানো নোটিশ জারী করেন। কিন্তু বিবাদী পক্ষ কোন প্রকার কারণ ও যোগাযোগ ব্যতিরেকে অত্র আদালতে অনুপস্থিত থাকেন প্রেক্ষিতে একতরফা মূল্যায়নের ক্ষেত্র প্রস্ত্তত হয় ।

৭। মূল্যায়ন /পর্যবেক্ষণঃবিবাদীগন জ্ঞাতসারে স্থানীয় নিষ্পত্তির উদ্যোগ অবজ্ঞা করেছেন। আত্ম পক্ষ সমর্থনে বিবাদীর  নৈতীক অক্ষমতা দৃশ্যমান । বাদী সর্বত্রই আইনানুগ আশ্রয় ও সুবিচার প্রাপ্তির হকদার ।

৮। সার্বিক মন্তব্য /পরামর্শঃনিম্ন স্বাক্ষরকারী/ গ্রামআদালতে মামলা / অভিযোগ নিষ্পত্তি সম্ভব না হওয়ায় এবং যথাযথ আদালতের মাধ্যমে বিচার ও অভিযোগ নিষ্পত্তির প্রয়োজন অনুভুত হওয়ায় মামলার নথী কার্যক্রম বন্ধ পূর্বক বাদীকে যথাযথ আদালতের শ্মরনাপন্ন হওয়ার পরামর্শ প্রদান করা হয়।

 

তাং - ০৯/০২/১৩ খ্রিঃ ।

 

         (মোঃ দুরুল হোদা)

   চেয়ারম্যান

  ৬নং রাণীহাটী ইউনিয়ন পরিষদ

   রামচন্দ্রপুরহাট, চাঁপাইনবাবগঞ্জ

 

বরাবর,

চেয়ারম্যান,

৬নং রাণীহাটী ইউনিয়ন পরিষদ,

পোষ্টঃ রামচন্দ্রপুরহাট,চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর, চাঁপাইনবাবগঞ্জ।

মামলা নংঃ

 

বিষয়ঃ  আমার সরলতার সুযোগ নিয়ে বিবাদী কর্তৃক অন্যায় অত্যাচার,ষড়যন্ত্র, হয়রানীমূলক কার্যক্রম ও অশান্তি সৃষ্টির চেষ্টা ।

 

বাদীঃমোঃ এরশাদ আলী পিতাঃ  মৃত, হেফাজ উদ্দীন, ঠিকানাঃ সাং- হাটরামচন্দ্রপুর, ডাকঘর- রামচন্দ্রপুরহাট, উপজেলা - চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর জেলাঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জ।

 

বিবাদীঃমোঃ আব্দুল আজিজ  পিতাঃ মৃত, হেফাজ উদ্দীন, ঠিকানাঃ সাং- হাটরামচন্দ্রপুর, ডাকঘর- রামচন্দ্রপুরহাট, উপজেলা - চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর জেলাঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জ।

 

জনাব,

বিনীত নিবেদন এই যে, উল্লিখিত বিবাদী অত্যন্ত ধুরন্ধর ও মামলাবাজ প্রকৃতির, সম্পর্কে আমার বড় ভাই হচ্ছে। আমি বিগত ১৯৯৩ সাল হতে ২০০৪ সাল পর্যন্ত কুয়েতে অবস্থান কালীন সময়ে যাবতীয় রোজগারের টাকা বিবাদীর নামে প্রেরণ করি। কুয়েত থেকে এসে ২০০৪ সাল হতে ২০০৬ সাল পর্যন্ত  বাড়িতে অবস্থান করে  আমার রোজগারের টাকার হিসাবে বিভিন্ন গরমিল লক্ষ্য করে আমি ২০০৬ সাল হতে ২০০৮ সাল পর্যন্ত আবার কুয়েত গমন করে আমার রোজগারের টাকা আমার স্ত্রীর নামে পাঠাতে থাকলে বিবাদী আমার ও আমার পরিবারের সহিত শত্রুতা ও অন্যায় অত্যাচার শুরু করে এবং চাঁপাইনবাবগঞ্জ কোটে জমি সংক্রান্ত ব্যাপারে আমার বিরুদ্ধে মামলা করে। যার নং ২৩৭/২০০৮। কিন্তু মামলাটি ভুয়া হওয়ায় ০৩/০৩/২০০৯খ্রিঃ তারিখ বিজ্ঞ আদালত খারিজ করে দেয়। উল্লিখিত বিবাদী চাঁপাইনবাবগঞ্জ কোটে আমার বিরুদ্ধে আরেকটি ৫ লক্ষ টাকার চিটিং মামলা করে যার নং সি,আর-৫০৯/২০০৮(নবাব)। কিন্তু উক্ত মামলা আবার ও ভুয়া প্রমাণিত হবে মর্মে বিবাদী প্রত্যাহার করে নেয় এবং মামলা উত্তোলনের নাম করে আমার সরলতার সুযোগে ফাঁকা ষ্ট্যাম্পে স্বাক্ষর করে নেয়। উক্ত ষ্ট্যাম্প ব্যবহার করে বিবাদী পুনরায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ কোটে আমার বিরুদ্ধে ৩ লক্ষ ৫০ হাজার টাকার মামলা করে যার নং সি,আর ১১৭/২০১১। উক্ত মামলার প্রেক্ষিতে বিগত ২৪ অক্টোবর/২০১২ আমি কুয়েত থেকে বাড়িতে আসলে বিবাদী আমাকে পুলিশ দ্বারা ধরিয়ে দেয়। আমি ২৫ অক্টোবর জামিন পায়। এভাবে বিবাদী পক্ষ আমার সরলতার সুযোগ গ্রহন করে  দেশে ও বিদেশে থাকা কালীন পরিবারের উপর বিভিন্ন মানসিক নির্যাতন অন্যয় অত্যাচার এবং বিভিন্ন হয়রানীমূলক আচরন,মামলা ও ষড়যন্ত্র  এবং অশান্তি সৃষ্টি করায় আমি স্থানীয়ভাবে মামলাটির মিমাংসা কল্পে আপনার স্মরণাপন্ন হলাম।

 

অতএব, হুজুরের নিকট আকুল আবেদন উপরোক্ত বিবাদীকে আপনার গা্রম আদালতে তলব করতঃ সুবিচার করতে মহোদয়ের মর্জি হয়।

 

 

 

নিবেদক,

 

 

(মোঃ এরশাদ আলী )

পিতাঃ  মৃত, হেফাজ উদ্দীন,

ঠিকানাঃ সাং- হাটরামচন্দ্রপুর,

ডাকঘর- রামচন্দ্রপুরহাট,

উপজেলা - চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর

জেলাঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জ।

তারিখঃ ২৯/১২/২০১৩খ্রিঃ

 

 

 

 ৬নং রাণীহাটী ইউনিয়ন পরিষদ

রামচন্দ্রপুরহাট, চাঁপাইনবাবগঞ্জ

ইউনিয়ন পরিষদ/ গ্রামাদালতের মামলা/অভিযোগ নিষ্পত্তি কার্যক্রমের চুড়ান্ত প্রতিবেদনঃ

মামলা/ অভিযোগ নং-১১১/১২

 

১। বাদী/ অভিযোগকারী ঃমোঃ সুমন আলী পিতাঃ  মোঃ মতিবুর রহমান, ঠিকানাঃ সাং- চুনাখালী ফকির পাড়া, ডাকঘর- রামচন্দ্রপুরহাট, উপজেলা - চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর জেলাঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জ।

 

২। বিবাদী/ অভিযুক্তঃ১। মোসাঃ জলি খাতুন  পিতাঃ মোঃ জাকার আলী, ২। মোঃ জাকার আলী পিতাঃ অজ্ঞাত ৩।মোসাঃ আমেনা বেগম স্বামীঃ মোঃ জাকার সর্ব ঠিকানাঃ সাং- ভগবানপুর, ডাকঘর- মহারাজপুর, উপজেলাঃচাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর জেলাঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জ।

ইউনিয়ন - রাণীহাটী, উপজেলা - চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর জেলাঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জ।

৩। অভিযোগ  প্রাপ্তির তারিখঃ ২৯/১২/২০১২খ্রিঃ ।

 

৪। অভিযোগের মুখ্য বিষয়/ দাবী ঃস্বামীর আনুগত্য ও নির্দেশনা অবজ্ঞা করা, স্বামী গৃহে না যাওয়া। প্রভৃতি

 

৫। অভিযোগের বিসত্মারিত বিবরণঃ  বাদি- ১নং বিবাদি সম্পর্কে  স্বামী-স্ত্রী । বাদি বিবাহের পর শ্বশুর বাড়িতে অবস্থান করছিল।  ১নং বিবাদি স্বামীর অনুগত না হয়ে স্বেচ্ছাচারী আচরণ করেণ। ১নং বিবাদি অব্যহত ভাবে স্বামীর নির্দেশনা অবজ্ঞা করতে থাকলে উভয়ের  সম্পর্কে তিক্ততা সৃষ্টি হয় । এক পর্যায়ে বাদি পিতার বাড়িতে  ১নং বাদি অর্থাৎ তাঁর স্ত্রীকে নিয়ে নিয়ে যাওয়ার বার বার চেষ্টা করে কিন্তু ২নং ও ৩নং বিবাদীর প্ররোচনায় তা ব্যর্থ হয়। এমতাবস্থায় বাদি বাধ্য হয়ে উপায়ামত্মর না পেয়ে অত্র গ্রাম আদালতের স্মরণাপন্ন হয়।

 

৬। গৃহীত কার্যক্রমঃ বিষয়টি অত্র গ্রাম আদালতের মাধ্যমে বিচার-নিষ্পত্তি যোগ্য না হওয়ায় বিরোধ নিষ্পত্তি ও শান্তি স্থাপনের অগ্রাধিকার মূলক দ্বায়িত্ব স্বরূপ নিম্ন স্বাক্ষরকারী তাঁর বিবিধ কার্যক্রমের আওতায় অভিযোগ নিষ্পত্তির  পদক্ষেপ গ্রহণ করেন ।লিখিত অভিযোগ পত্র প্রাপ্তির পর তা নথীভুক্ত করা হয়। সার্বিক সনাক্ত করণ ও অভিযোগ নিষ্পত্তির জন্য যথাক্রমে হাজিরা তাং ধার্য পূর্বক ০১/১২/২০১২খ্রিঃ, ০৮/১২/২০১২খ্রিঃ, ১৫/১২/২০১২খ্রিঃ বিবাদী গনকে সমন প্রেরণ করা হয়। বিবাদী পক্ষ  সমন গ্রহণ করে কোন প্রকার কারণ ও যোগাযোগ ব্যতিরেকে অনুপস্থিত থাকেন ফলে একতরফা মূল্যায়নের ক্ষেত্র প্রস্ত্তত হয় ।

 

৭। মূল্যায়ন /পর্যবেক্ষণঃ বিবাদীগন জ্ঞাতসারে স্থানীয় নিষ্পত্তির উদ্যোগ অবজ্ঞা করেছেন । আত্ম পক্ষ সমর্থনে বিবাদীর নৈতীক অক্ষমতা দৃশ্যমান । বাদী সর্বত্রই আইনানুগ আশ্রয় ও সুবিচার প্রাপ্তির হকদার ।

 

৮। সার্বিক মমত্মব্য /পরামর্শঃনিম্ন স্বাক্ষরকারী/ গ্রামাদালতে মামলা / অভিযোগ নিষ্পত্তি সম্ভব না হওয়ায় এবং যথাযথ আদালতের মাধ্যমে  বিচার ও অভিযোগ নিষ্পত্তির প্রয়োজন অনুভুত হওয়ায়  মামলার নথী কার্যক্রম বন্ধ পূর্বক বাদিকে যথাযথ আদালতের শ্মরনাপন্ন হওয়ার পরামর্শ প্রদান করা হয়।

 

তাং - ১৬/০৪/২০১৩ খ্রিঃ ।

 

        (মোঃ দুরুল হোদা)

   চেয়ারম্যান

  ৬নং রাণীহাটী ইউনিয়ন পরিষদ

   রামচন্দ্রপুরহাট, চাঁপাইনবাবগঞ্জ

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 ৬নং রাণীহাটী ইউনিয়ন পরিষদ

রামচন্দ্রপুরহাট, চাঁপাইনবাবগঞ্জ

ইউনিয়ন পরিষদ/ গ্রামাদালতের মামলা/অভিযোগ নিষ্পত্তি কার্যক্রমের চুড়ামত্ম প্রতিবেদনঃ

 

মামলা/ অভিযোগ নং- ১১৫/১২

 

১। বাদী/ অভিযোগকারীঃ মোঃ বেলাল উদ্দীন, পিতাঃ  মৃত, আব্দুস সোভান মন্ডল, ঠিকানাঃ সাং- রামচন্দ্রপুর, ডাকঘর- রামচন্দ্রপুরহাট, উপজেলা - চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর জেলাঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জ।

২। বিবাদী/ অভিযুক্তঃমোঃ আবুল কাসেম,পিতাঃমোঃ বেলাল উদ্দীন সাং-রামচন্দ্রপুর, ডাকঘর- রামচন্দ্রপুরহাট, উপজেলা - চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর জেলাঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জ।

ইউনিয়ন -রাণীহাটী, উপজেলা - চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর জেলাঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জ।

 

৩। অভিযোগ  প্রাপ্তির তারিখঃ২৭/১১/২০১২খ্রিঃ ।

 

৪। অভিযোগের মুখ্য বিষয়/ দাবীঃ ছেলে কর্তৃক পিতাকে শারিরিক অত্যাচার ও সম্পদ জবর দখল প্রভৃতি ।

 

৫। অভিযোগের বিসত্মারিত বিবরণ  বাদী- বিবাদীগন সম্পর্কে  পিতা-পুত্র হচ্ছে । বিবাদী-বাদীকে অন্যায় ভাবে শারিরিক নির্যাতন ও অন্যায় অত্যাচার করছে। শুধু তাই নয় উক্ত বিবাদী জোরপূর্বক বাদীর সম্পদ নিয়ে নিচ্ছে। এমনকি উক্ত বিবাদী বাদীর মেয়ে , নাতি ও বৌমাকে মারতে ছাড়েনি। উক্ত বিবাদীর অন্যায় অত্যাচারে বর্তমানে বাদীর পরিবারে সবাই অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে। উল্লেখ্য যে, উক্ত বিবাদীর অত্যাচারে বাদীর জান মাল হুমকির সম্মুখিন ।এর প্রেক্ষিতে বাদী বাধ্য হয়ে সুবিচারের আশায় অত্র গ্রাম আদালতে মামলা দায়ের করে। যাহা ইউপি ২৭/১১/২০১২খ্রিঃ তারিখ প্রাপ্ত হয়। যার মামলা নং ১১৫/১২।

৬। গৃহীত কার্যক্রম ঃ  লিখিত অভিযোগ পত্র প্রাপ্তির পর তা নথীভুক্ত করা হয়। সার্বিক সনাক্ত করণ ও অভিযোগ নিষ্পত্তির জন্য যথাক্রমে হাজিরা তাং ধার্য্য পূর্বক ০১/১১/২০১২খ্রিঃ, ০৮/১২/২০১২খ্রিঃ এবং ২২/১২/২০১২খ্রিঃ বিবাদীকে সমন প্রেরণ করা হয়। বিবাদীপক্ষ ১ম সমন গ্রহণ করে কিন্তু ২য় ও ৩য় সমন গ্রহণ না করলে সমন বাহক মারফত ঝুলানো নোটিশ জারি করা সত্ত্বেও বিবাদী পক্ষ কোন প্রকার কারণ ও যোগাযোগ ব্যতিরেকে অনুপস্থিত থাকেন ফলে একতরফা মূল্যায়নের ক্ষেত্র প্রস্ত্তত হয় ।

 

৭। মূল্যায়ন /পর্যবেক্ষণঃবিবাদীগন জ্ঞাতসারে স্থানীয় নিষ্পত্তির উদ্যোগ অবজ্ঞা করেছেন। আত্মপক্ষ সমর্থনে বিবাদী গনের নৈতীক অক্ষমতা দৃশ্যমান । বাদী সর্বত্রই আইনানুগ আশ্রয় ও সুবিচার প্রাপ্তির হকদার ।

 

৮। সার্বিক মমত্মব্য /পরামর্শঃনিম্ন স্বাক্ষরকারী/ গ্রাম আদালতে মামলা / অভিযোগ নিষ্পত্তি সম্ভব না হওয়ায় এবং যথাযথ আদালতের মাধ্যমে বিচার ও অভিযোগ নিষ্পত্তির প্রয়োজন অনুভুত হওয়ায় মামলার নথী কার্যক্রম বন্ধ পূর্বক বাদীকে যথাযথ আদালতের স্মরনাপন্ন হওয়ার পরামর্শ প্রদান করা হয়।

 

তাং - ২০/০৪/২০১৩ খ্রিঃ                                                               (মোঃ দুরুল হোদা)

   চেয়ারম্যান

  ৬নং রাণীহাটী ইউনিয়ন পরিষদ

    রামচন্দ্রপুরহাট, চাঁপাইনবাবগঞ্জ

 

 

 

 

৬নং রাণীহাটী ইউনিয়ন পরিষদ

রামচন্দ্রপুরহাট, চাঁপাইনবাবগঞ্জ

ইউনিয়ন পরিষদ/ গ্রামাদালতের মামলা/অভিযোগ নিষ্পত্তি কার্যক্রমের চুড়ামত্ম প্রতিবেদনঃ

মামলা/ অভিযোগ নং-৬৫/১৩

 

১। বাদী/অভিযোগকারী ঃ মোঃ নুরুল হোদা(বাবু), পিতাঃ  মৃত, আকবর আলী মিঞা, ঠিকানাঃ সাং- কৃষ্ণগোবিন্দপুর, ডাকঘর- রামচন্দ্রপুরহাট, উপজেলা - চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর জেলাঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জ।

 

২। বিবাদী/অভিযুক্তঃ ১। মোসাঃ মোসত্মারী বেগম, স্বামীঃ মৃত,নজরুল ইসলাম ২। মোসাঃ ফাতেমা খাতুন পিতাঃ মৃত, নজরুল ইসলাম,সর্ব ঠিকানাঃ সাং- কৃষ্ণগোবিন্দপুর, ডাকঘর- রামচন্দ্রপুরহাট, উপজেলা -চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর জেলাঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জ।

 

ইউনিয়ন - রাণীহাটী, উপজেলা - চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর জেলাঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জ।

 

৩। অভিযোগ  প্রাপ্তির তারিখঃ ০৪/০৭/২০১৩খ্রিঃ ।

 

৪। অভিযোগের মুখ্য বিষয়/ দাবীঃ বিবাদীগন কর্তৃক অভিযোগকারীর খরিদকৃত জমি অংশ বুঝিয়ে না দেয়া, জবর- দখল ও  অশামিত্ম সৃষ্টি।

 

৫। অভিযোগের বিসত্মারিত বিবরণঃ  বিবাদীগন অত্যমত্ম ধুরন্ধর প্রকৃতির। অভিযোগকারী হাসানুজ্জামান ডন মিঞার বসত মাটির অংশ ক্রয় করে। কিন্তু উপরোক্ত বিবাদীগন যোগসাজস করে অভিযোগকারীর ক্রয় কৃত অংশের মাটি ও বিভিন্ন প্রকার ফলের অংশ জবর দখল করে রয়েছে ও ভোগ করছে। অভিযোগকারী বিবাদীগনকে তাঁর অংশ বুঝিয়ে দেয়ার কথা বললে বিবাদীগন বিভিন্ন রকম টালবাহানা করছে। বিবাদী গন অভিযোগকারীর অংশের জমি জোড় পূর্বক জবর দখল ও ভোগ- দখলে অভিযোগকারীকে বাধা দান এবং অশামিত্ম সৃষ্টিতে নানাবিধ দুরভিসন্ধি মূলক পদক্ষেপ গ্রহনের ফলে ন্যায় সংগত অধিকার হতে অভিযোগকারী বঞ্চিত হলে অধিকার রক্ষা ও শামিত্মপূর্ণ সমাধানের প্রত্যাশায় নিম্ন স্বাক্ষরকারী বরাবরে লিখিত অভিযোগপত্র দাখিল করেন । 

৬। গৃহীত কার্যক্রমঃ বিষয়টি গ্রাম আদালতের মাধ্যমে বিচার-নিষ্পত্তি যোগ্য না হওযায় বিরোধ নিষ্পত্তি ও শামিত্ম স্থাপনের অগ্রাধিকার মূলক দ্বায়িত্ব স্বরূপ নিম্ন স্বাক্ষরকারী তাঁর বিবিধ কার্যক্রমের আওতায় অভিযোগ নিষ্পত্তির  পদক্ষেপ গ্রহণ করেন। লিখিত অভিযোগ পত্র প্রাপ্তির পর তা নথীভুক্ত করা হয়। সার্বিক সনাক্ত করণ ও অভিযোগ নিষ্পত্তির জন্য যথাক্রমে হাজিরা তাং ধার্য পূর্বক ০৬/০৭/২০১৩খ্রিঃ, ১৩/০৭/২০১৩খ্রিঃ এবং ২০/০৭/২০১৩খ্রিঃ বিবাদীকে সমন প্রেরণ করা হয়। বিবাদীগন ১ম, ২য় ও ৩য় সমন গ্রহণ করেন নাই এমনকি কিন্তু কোন প্রকার কারণ ও যোগাযোগ ব্যতিরেকে অত্র আদালতে অনুপস্থিত থাকেন প্রেক্ষিতে একতরফা মূল্যায়নের ক্ষেত্র প্রস্ত্তত হয় ।

 

৭। মূল্যায়ন/পর্যবেক্ষণঃ বিবাদীগন জ্ঞাতসারে স্থানীয় নিষ্পত্তির উদ্যোগ অবজ্ঞা করেছেন। আত্মপক্ষ সমর্থনে বিবাদীর  নৈতীক অক্ষমতা দৃশ্যমান। বাদী সর্বত্রই আইনানুগ আশ্রয় ও সুবিচার প্রাপ্তির হকদার ।

 

৮। সার্বিক মমত্মব্য /পরামর্শঃ নিম্ন স্বাক্ষরকারী/গ্রামাদালতে মামলা/অভিযোগ নিষ্পত্তি সম্ভব না হওয়ায় এবং যথাযথ আদালতের মাধ্যমে বিচার ও অভিযোগ নিষ্পত্তির প্রয়োজন অনুভুত হওয়ায় মামলার নথী কার্যক্রম বন্ধ পূর্বক বাদীকে যথাযথ আদালতের শ্মরনাপন্ন হওয়ার পরামর্শ প্রদান করা হয়।

 

তাং - ২৫/০৭/২০১৩খ্রিঃ                                                                        (মোঃ দুরুল হোদা)


Share with :

Facebook Twitter